সেট নেই, আইফোনের খালি বাক্সে ভরপুর দোকান!

0 120

অবৈধ আইফোনে বাজার সয়লাব হয়ে গেছে। যে হারে আইফোন বিক্রি হচ্ছে সে হারে আমদানি হচ্ছে না! তার মানে যেগুলো বিক্রি হচ্ছে সেগুলো অবৈধ উপায়ে দেশে আনা হয়েছে। অবৈধ আইফোন জব্দের অভিযানে দোকানগুলোতে শত শত আইফোনের খালি বাক্স দেখে তাদের সন্দেহ আরও তীব্র হচ্ছে।

শুল্ক গোয়েন্দাদের মতে, দেশের বন্দরগুলো দিয়ে গত দুই মাসে মোট এক হাজার ৭০০টি আইফোন হ্যান্ডসেট আমদানি করা হয়েছে। এসবের বাইরে সব সেট-ই লাগেজ পার্টির মাধ্যমে অবৈধ উপায়ে দেশে এনে বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে।
রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে দেশে আনা এসব অবৈধ আইফোন ধরতে শনিবার রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিং মল, গুলশান-মহাখালী এবং উত্তরায় একযোগে অভিযান চালায় শুল্ক গোয়েন্দারা। বসুন্ধরা সিটিতে অভিযানে বৈধ কাগজপত্র ছাড়া প্রায় ১০০টি আইফোন হ্যান্ডসেট জব্দ করা হয়।

সেটগুলোর বিষয়ে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (এডিজি) কাজী মো. জিয়াউদ্দিন বলেন, বর্তমান বাজারে একটি আইফোন-১০ এর দাম এক থেকে দেড় লাখ টাকা। বৈধভাবে প্রতিটি আইফোন আমদানিতে সরকার ৩৫ থেকে ৪০ হাজার টাকা আয় করে। কাস্টমস সূত্রে জেনেছি গত দুই মাসে বাংলাদেশে মোট ১৭০০ হ্যান্ডসেট রাজস্ব দিয়ে আমদানি করা হয়েছে। তাই রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে আমদানি করা এসব সেটের সন্ধানে আমরা অভিযান চালাচ্ছি। সেট ক্রয়ের বৈধ কাগজপত্র না দেখাতে পারলে আমরা ধরে নেবো তারা রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ব্যাগেজ পার্টি থেকে সেট কিনছে। সেসব সেট জব্দ করা হবে।

বসুন্ধরা শপিং মলের লেভেল-১ এর সেল-অন, গ্যাজেট জোন, ফোন এক্সচেঞ্জ, শিকদার ইলেক্ট্রনিক্স ও নিশা টেলিকমে অভিযান চালিয়ে মোট ১০০টি আইফোন জব্দ করা হয়। এছাড়াও অভিযানে আইফোনের কয়েকশ’ খালি বাক্স উদ্ধার করা হয়।

এসব সেট বৈধ নাকি অবৈধ? জানতে চাইলে গ্যাজেট জোনের বিক্রয় কর্মকর্তা মো. ইউনুস জাগো নিউজকে বলেন, বহুজাতিক ইউনিয়ন গ্রুপ বাংলাদেশে আইফোন সরবরাহ করে। গ্রামীণফোন, বাংলালিংক, রবি’র মতো আমরাও ইউনিয়ন গ্রুপের অথোরাইড ডিলার। কেন আমাদের সেট জব্দ করা হলো কিছুই বুঝলাম না।

Leave A Reply

Your email address will not be published.