নমিনেশন নিয়ে এ কী বললেন জীবননগর আ’লীগ সভাপতি?

0 216

চুয়াডাঙ্গা: জীবননগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোর্তূজার একটি বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের নমিনেশন দেয়া নিয়ে তার বক্তব্য এলাকায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

শনিবার বিকালে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের নির্বাচনী এলাকার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা বাজারে অনুষ্ঠিত এক জনসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি আপত্তিকর কথাগুলো বলেন।

চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মো. আলী আজগার টগরের পক্ষে দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা বাজারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম ঝন্টুর সভাপতিত্বে নির্বাচনী এক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়।

ওই সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জীবনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোর্তূজা বলেন, ‘এখন নমিনেশন নেয়ার জন্য অনেকেই উলুবন থেকে উড়ে এসে জুড়ে বসেছেন। নমিনেশন তো আর শেখ হাসিনা দেবেন না। নমিনেশন দেব আমি আর দামুড়হুদার ঝন্টু। কারণ আমি জীবননগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং ঝন্টু দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। আমাদের সঙ্গে কমিটির সবাই রয়েছে। আছেন সব ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরাও। আমরা নমিনেশন দেব।’

এ সময় জনতার মুহুর্মুহু করতালি পড়লেও কিছুসংখ্যক নেতাকর্মীর মধ্যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়। অন্যদিকে অনুষ্ঠানের বক্তব্যের ভিডিওটি সামাজিক গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে গোলাম মোর্তুজাকে বহিষ্কারসহ তার সম্পর্কে নানা আপত্তিকর মতামত ব্যক্ত করতে দেখা গেছে।

এ ব্যাপারে জীবননগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোর্তূজা বলেন, আমি আসলে আমার বক্তব্যে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মূল্যায়নের কথা বলতে চেয়েছি। তৃণমূল নেতাকর্মীরা যদি না থাকে নমিনেশন পেয়ে লাভ কী? আমার বক্তব্য আসলে আংশিক প্রচার করে একটি পক্ষ আমাকে হেয় করার চেষ্টায় মাঠে নেমেছে।

এ ব্যাপারে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আজাদুল ইসলাম আজাদ বলেন, উনি যদি সত্যিই এ ধরনের কোনো বক্তব্য দিয়ে থাকেন তাহলে ঠিক বলেননি। নমিনেশন দেয়ার ব্যাপারে দলের পার্লামেন্টারি বোর্ড আছে, যে পার্লামেন্টারি বোর্ডের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আমাদের দলের সভানেত্রী।

এ ব্যাপারে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জাতীয় সংসদের হুইপ সোলাইমান হক জোয়ার্দ্দার সেলুন বলেন, এ ধরনের বক্তব্য দলীয় নেত্রীকে অবমাননার শামিল। ব্যাপারটি আমরা দলীয় হাইকমান্ডকে জানাব।

Leave A Reply

Your email address will not be published.