জীবননগর বেনীপুরে প্রেমিকার সাথে যোগাযোগের অপরাধে ছাত্রলীগ কর্মিকে পিটিয়ে আহত থানায় লিখিত অভিযোগ

0 303

 

জীবননগর: জীবননগর উপজেলার বেনীপুরে সাবেক প্রেমিকার সাথে যোগাযোগের অপরাধে প্রেমিক ছাত্রলীগ কর্মিকে প্রেমিকার পরিবারের সদস্যরা পিটিয়ে মারাত্মক ভাবে আহত করেছে। ঘটনাটি শনিবার দুপরে জীবননগর শহরের দালাল অফিসের সামনে সংঘটিত হয়েছে। আহত প্রেমিক কলেজ ছাত্রকে মারাত্মক আহত অবস্থায় জীবননগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় আহত প্রেমিকের পিতা বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।
প্রত্যক্ষদর্শী সুত্র জানান,জীবননগর উপজেলার সীমান্ত ইউনিয়নের বেনীপুর গ্রামের মাঠপাড়ার শফিকুল ইসলামের ছেলে হাসানুজ্জামান(২২) জীবননগর ডিগ্রী কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তাকে শনিবার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে বেনীপুর গ্রামের ঘোষপাড়ার সাবেক মেম্বার রবিউলের ছেলে হাসান(২৫),আশাদুলের ছেলে রুবেল(২৪),খাদেম মন্ডলের ছেলে রবিউল মেম্বার(৫৩) ও মৃত আবুল হোসেনের ছেলে আশাদুল হক(৫৫) জীবননগর বাসষ্ট্যান্ড সংলগ্ন দালাল অফিসের সামনে কৌশলে চা খাওয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে লোহার রড ও কাঠের বাটাম দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মক ভাবে আহত করে বীরদর্পে চলে যায়। পরবর্তীতে আহত হাসানুজ্জামানকে উদ্ধার করে জীবননগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনার এক পর্যায়ে জানা যায়,সাবেক প্রেমিকার সাথে নতুন করে যোগাযোগ করার কারণে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে।
আহত হাসানুজ্জামান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জানায়,তার সাথে গ্রামের রবিউল মেম্বারের মেয়ের ২-৩ বছর আগে প্রেম ছিল। কিন্তু ওই প্রেমিকার বিয়ে হয়ে যাওয়ায় আমার সাথে তার সমস্ত প্রকার যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। তারপরও তার পরিবারের অভিযোগ আমি তার সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছি। আর এ অভিযোগে আমাকে শনিবার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে আমি কলেজে থাকা কালে হাসান আমাকে মোবাইল ফোনে চা খাওয়ার কথা বলে জীবননগর বাসষ্ট্যান্ডের নিকট দালাল অফিসের সামনে ডেকে নেয়। আমি সেখানে উপস্থিত হয়ে দেখি রবিউল মেম্বার,আশাদুল,রুবেল ও হাসান রয়েছে। আমি কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই তারা আমাকে লোহার রড ও কাঠের বাটাম দিয়ে মাথায় ও পায়ে এলোপাতাড়ী ভাবে মারপিট করে মারাত্মক ভাবে আহত করে পালিয়ে যায়। এ সময় তারা আমার নিকট থাকা নগদ ৭০০০ টাকা,একটি সোনার চেইন ও একটি বিদেশী মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। লোকজন আমাকে উদ্ধার করে জীবননগর হাসপাতালে ভর্তি করেন।
এ ঘটনায় আহত হাসানুজ্জামানের পিতা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তিনি বলেন,আমি রবিউল মেম্বারকে আগেই বলেছিলাম,আমার ছেলে যদি তার মেয়েকে কোন ভাবে ডিস্ট্রাব করে আমাকে বললে আমি তার উপযুৃক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করব। কিন্তু তারা আমাকে কোন কিছু না জানিয়ে ছেলেকে মারপিট করার পর তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে যে তার মেয়ের সাথে যোগাযোগ করায় তাকে মারপিট করা হয়েছে। আমার ছেলে ছাত্রলীগের একজন কর্মি মাত্র।
সীমান্ত ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বার আসাদুজ্জামান আসাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,আহত হাসানুজ্জামান তার বিবাহিত প্রেমিকার সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলার ব্যাপারটি আমার নিকট কোন পক্ষই বলেনি। তারা উভয় যদি ঘটনাটি আমাকে বলতো তাহলে আমি স্থানীয় ভাবে নিস্পত্তির উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারতাম। এখন তারা যা পারে করুক আমার আর কি করার আছে?

Leave A Reply

Your email address will not be published.