ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের মূল্যায়ন করছে না বিএনপি, হতাশ কামাল-মান্না-রব

0 14

 

ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হওয়ার পর মৃতপ্রায় বিএনপির মনোবল অনেকটা চাঙ্গা হয়েছে বলেই এখন দৃশ্যমান। গুঞ্জন উঠেছে, ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ক্ষমতায় যাবার লোভে বিএনপির বিপদের দিনে পাশে এসে দাঁড়িয়েছিল ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা। কিন্তু নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে দলটির আসল রূপ ততই স্পষ্ট হচ্ছে। বিএনপি তাদের অক্সিজেন দাতা ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের নির্বাচনের মাঠে বিন্দু পরিমাণ মূল্যায়ন করছেনা বলে-ই অভিযোগ করছেন নেতারা। এ নিয়ে হতাশাও ব্যক্ত করেছেন ড. কামাল, মান্না, আ স ম আবদুর রবের মতো নেতারা।

ঐক্যফ্রন্টের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ক্ষমতায় যাবার সিঁড়ি হিসেবে ঐক্যফ্রন্টকে পূর্ণরূপে ব্যবহার করছে বিএনপি। অথচ নির্বাচনের আসন ভাগাভাগির সময় দলটি ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতাদের পছন্দকে অগ্রাহ্য করে নিজেদের মতামতকেই প্রাধান্য দিচ্ছে। দলটির নীতি নির্ধারণী ফোরাম মনে করছে, রাজনীতিতে সময়ের হাওয়া এখন তাদের দিকেই বইছে। তাই ড. কামালদের আসন ভাগাভাগিতে বেশি গুরুত্ব দেয়া অর্থহীন।

সূত্রের বরাতে জানা যায়, নির্বাচনে আধিপত্য বিস্তারের কথা মাথায় রেখে ঐক্যফ্রন্টকে আসনের ভাগ দিতে চরম অনীহা প্রকাশ করেছে বিএনপি। অপরদিকে কূটনীতিকদের কাছে ড. কামালের ভাবমূর্তি অনেকটা পরিচ্ছন্ন হওয়ায় দলটিকে বিশ্বাসঘাতক হিসেবে চিহ্নিত করছে অনেক বিদেশি বন্ধু। আসন ভাগাভাগি নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের সঙ্গে বৈষম্য করা হয়েছে বলেই মনে করছে কূটনীতিকরা। বিএনপির এই বৈষম্য সম্পর্কে অবগত করতে গত ৪ নভেম্বর ঢাকায় নিযুক্ত কূটনীতিকদের সঙ্গে ঢাকার রেডিসন ব্লুতে ঐক্যফ্রন্টের নেতারা গোপন বৈঠক করেছেন বলেও জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে ঐক্যফ্রন্ট নেতা ডা. জাফরুল্লাহ জানান, বিএনপির অক্সিজেন দাতা ড. কামাল, জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার সঙ্গে বিএনপি প্রতারণা করেছে। নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসছে তত ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের অবমূল্যায়নের স্বীকার হতে হচ্ছে। তাই ঢাকায় নিযুক্ত কূটনীতিকদের কাছে বিএনপির প্রতারণার বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। বিএনপি এই কৌশলের জন্য তারা বড় ধরণের খেসারত দিতে হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রের ভাষ্য, বিএনপির আচরণে চরম হতাশা ব্যক্ত করেছেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন। এজন্য বিএনপির সাথে মাহমুদুর রহমান মান্নাকে আসন বন্টন নিয়ে সমঝোতা করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। যদিও এ নিয়ে কোন আশানুরূপ সমাধান আসবে বলেও মনে করছেন তারা। বরং বিএনপির স্বেচ্ছাচারিতার জবাব দেয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.