শপথ না নিয়ে আবারো বড় ভুল করছে বিএনপি-ঐক্যফ্রন্ট

0 224

 

ডেস্ক: দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন করে বিএনপি যে ভুল করেছিল একাদশ সংসদের এমপি হিসেবে শপথ গ্রহণ না করে তারা সেই ভুলেরই পুনরাবৃত্তি ঘটাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের শপথ গ্রহণকারী এমপিরা। এর মাধ্যমে জনগণের দেয়া রায়কে অবজ্ঞা করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তারা।

জাতীয় সংসদ ভবনে বৃহস্পকিবার শপথগ্রহণ শেষে নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে এসব কথা বলেন নবনির্বাচিত এমপিরা। এ সময় তারা বিশেষ করে তরুণ এমপিরা নিজ নিজ এলাকার উন্নয়নে নিবেদিত হয়ে কাজ করে ভোটারদের আস্থার প্রতিদান দিতে চান বলেও জানান। আওয়ামী লীগের মনোনয়নে এমপি নির্বাচিত হওয়া ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা শপথ নেয়ার পর সাংবাদিকদের বলেন, খেলা ও রাজনীতি দু্টােই একসঙ্গে চালিয়ে যাব। দুটোতেই ভালো করার চেষ্টা করব।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন বলেন, এলাকাকে সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত করতে সবাই মিলে কাজ করব। এলাকার উন্নয়নের অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করব।

মেহেরপুর-২ আসনের মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন বলেন, প্রধানমন্ত্রী তরুণ নেতৃত্বকে যেভাবে প্রাধান্য দিয়েছেন সেটি ভবিষ্যত জাতি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এমপি নির্বাচিত করায় এলাকার (গাংনী) ভোটারদের অভিনন্দন জানিয়ে তাদের আস্থা অর্জনের চেষ্টা করবেন বলেও জানান তরুণ এই এমপি।

আরেক তরুণ এমপি বিকল্পধারা বাংলাদেশের মাহি বি চৌধুরী বলেন, এবার জনগণের ম্যান্ডেটটা অনেক বড়। তাই দায়িত্বটাও অনেক বড়। সেই দায়িত্বটা আমরা দায়িত্বশীলতার সঙ্গে পালন করতে চেষ্টা করব। যারা আমাকে ভোট দিয়েছেন, আমার ওপর আস্থা রেখেছেন, বিশ্বাস করেছেন তাদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকে যারা নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয়ী হয়েছেন, তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, তারা নির্বাচিত হলেও শপথ নিতে আসেননি। জনগণ তাদের ম্যান্ডেড দিয়েছে। এর পরেও যারা সংসদে আসেননি তারা জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করছেন।

এদিকে বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচিতদের সংসদে দেখতে চান মহাজোটের সিনিয়র এমপিরাও। তাদের শপথ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, এবারের নির্বাচন ১৯৭০ সালের নির্বাচনের মতোই হয়েছে। এ নির্বাচনে জনগণ বিএনপি-জামায়াত জোটের দুঃশাসনের জবাব দিয়েছে।

জাসদের একাংশের কার্যকরী সভাপতি মইনউদ্দিন খান বাদল বলেন, নির্বাচনের আগের বিএনপির যে ‘দ্বিধাবিভক্তি’ ছিল, তা এখনো কাটেনি। গতবার নির্বাচন বর্জন করা বিএনপি এবার শপথ না নিয়ে আবার ভুল করছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.