ভারতকে টেক্কা দিতে পাকিস্তানকে ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে চীন

0 74

 

ডেস্ক: ভারতকে টেক্কা দিতে তাদের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বি পাকিস্তানের জন্য ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করছে চীন।

চীন-পাকিস্তান সামরিক চুক্তির অংশ হিসেবে পাকিস্তানি নৌ বাহিনীর জন্য নতুন প্রজন্মের ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করছে তারা। ২০২১ সাল নাগাদ এটি দেশটির নৌ-সমরাস্ত্রে যুক্ত হবে।

এই ক্ষেপণাস্ত্রটি যোগ হওয়ার ফলে শক্তির দিক থেকে ভারতীয় নৌ বাহিনীর সঙ্গে দূরত্ব কমে আসবে পাকিস্তানের। দু’পক্ষই তখন ক্ষমতার দিক থেকে সমক্ষতা অর্জন করবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

২০০৫ সালে ভারত ‘ব্রাহ্মোস’ ক্ষেপণাস্ত্রটি নিজেদের অস্ত্রভান্ডারে যুক্ত করে। এতদিন তাদের এ ক্ষেপণাস্ত্রটি এ অঞ্চলটিতে অপ্রতিদ্বন্দ্বি ছিল।

তবে পাকিস্তানের জন্য চীনের নির্মাণ করতে থাকা ‘সিএম-৩০২’ ক্ষেপণাস্ত্রটি শব্দের চেয়ে তিন গুণ গতিসম্পন্ন। এছাড়াও এটি দূরবর্তী লক্ষ্যস্থলে ‘নির্ভুল’ আঘাত হানতে সক্ষম।

ভারত মহাসাগরে কৌশলগত দিক থেকে শক্তিশালী হতে পাকিস্তানকে অত্যাধুনিক যুদ্ধজাহাজও বানিয়ে দিচ্ছে চীন। চীনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এই জাহাজটি অন্য যেকোনো জাহাজের তুলনায় বেশি আধুনিক। ধারণা করা হচ্ছে এই ক্ষেপণাস্ত্রটি ওই জাহাজের প্রাথমিক অস্ত্র হিসেবে ব্যবহৃত হবে।

জানুয়ারির শুরুর দিকে চীনের সরকারি জাহাজ নির্মাণ করপোরেশন জানিয়েছিল, চাইনিজ নেভির তত্ত্বাবধানে নির্মাণাধীন ‘টাইপ ০৫৪এপি’ জাহাজটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণেও সক্ষম হবে। এখন বোঝা যাচ্ছে ‘সিএম-৩০২’ সেই ক্ষেপণাস্ত্র।

‘টাইপ ০৫৪এপি’ পর্যবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা চীনা কর্মকর্তারা এনডিটিভিকে বলেন, নতুন সক্ষমতার কারণে এটি নতুন হুমকি। কিন্তু ভারতীয় নৌবাহিনীকে টেক্কা দিতে হলে বেশকিছু দিন অপেক্ষা করতে হবে।

সামরিক চুক্তির অংশ হিসেবে চীন পাকিস্তানকে আটটি সাবমেরিনও দেবে। এরমধ্যে প্রথম চারটি ২০২৩ সালের মধ্যে পাকিস্তানের হাতে তুলে দেয়া হবে। বাকি চারটি দেয়া হবে ২০২৮ সালের মধ্যে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.