বাংলাদেশের সঙ্গে সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্ক রাখবে ইইউ

0 50

 

ডেস্ক: বাংলাদেশের সার্বিক অগ্রগতিতে ও উন্নয়নের অংশীদার হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন। এ লক্ষ্যে সংস্থাটি বাংলাদেশের নবগঠিত সরকারের সঙ্গে গঠনমূলক ও সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপন এবং তা রক্ষায় কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে বাংলাদেশে নিযুক্ত ইইউ-এর হেড অব ডেলিগেশন রেন্সজে টেরিংক (Rensje Teerink) এ আগ্রহ প্রকাশ করেন। এতে তিনি নবনিযুক্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রীকেও উষ্ণ অভিনন্দন জানান।

সন্ধ্যায় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশের সঙ্গে সুশাসন, গভীর অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব, রোহিঙ্গা সংকট, অভিবাসন, জলবায়ু পরিবর্তন এবং উন্নয়ন সহায়তাসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ক্ষেত্রে আগ্রহ প্রকাশ করেছে ইইউ।

এছাড়া এলডিসি পরবর্তী সময়েও বাংলাদেশের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ক কেমন হবে, তা নিয়েও আলোচনা করা হয় বৈঠকে। যেখানে দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্ক আর্থিক দিক থেকে রাজনৈতিক দিকে প্রবাহিত হবে।

এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত এক দশকে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। দারিদ্র্য দূরীকরণ, মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য পরিস্থিতির উন্নয়ন, স্যানিটেশন, রিজার্ভ বৃদ্ধি, অবকাঠামো উন্নয়নসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এখন রোল মডেল।

এছাড়াও অর্থনৈতিক কূটনীতির মাধ্যমে সরকারের ২০২১, ২০৩০ ও ২০৪১ সালের ভিশন অর্জনের লক্ষ্য এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স নীতির কথাও তুলে ধরেন তিনি। এ লক্ষ্যে সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়ন করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এ প্রসঙ্গে ড. মোমেন তারুণ্য এবং নারীর ক্ষমতায়ন, পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ, বিনিয়োগ ও বাণিজ্যের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা কামনা করেন।

এর বাইরে মানুষের ক্ষমতায়ন, উন্নয়ন, সংস্কৃতি ও শান্তি, অটিজম সচেতনতার বিষয়ে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের রেজ্যুলেশনে বাংলাদেশের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে আঞ্চলিক সহযোগিতা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে আগ্রহ প্রকাশ করেন তিনি।

এদিকে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশকে সমর্থনদানের জন্যও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ধন্যবাদ জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এক্ষেত্রে তিনি রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তার কথা উল্লেখ করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর কূটনীতিকদের সঙ্গে এ কে আব্দুল মোমেনের প্রথম বৈঠক এটি। এজন্য বৈঠকে অংশ নেয়ার জন্য উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি। বাংলাদেশকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য ভূমিকার রাখতে কূটনীতিকদের সহযোগিতা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বৈঠকে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হকসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.