জীবননগর মাধবখালী বেওয়ারিশ কুকুরের উৎপাতে গ্রামবাসী অতিষ্ঠ

0 50

 

জীবননগর: জীবননগর উপজেলার মাধবখালী গ্রামে বেওয়ারিশ কুকুরের উৎপাতে গ্রামবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন। কুকুরের কামড়ে ইতিমধ্যে ওই গ্রামে এক বিধবা নারীর তিনটি গরু মারা গেছে। অন্যদিকে বিভিন্ন মানুষের গৃহপালিত ছাগল,হাঁস-মুরগী বেওয়ারিশ কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হয়েছে। গ্রামবাসীর অভিযোগ এক ব্যাক্তির বাড়ীতে থাাকা কয়েকটি কুকুরে এসব ঘটনা ঘটালেও ওই ব্যাক্তি কুকুরগুলো মারতে দিচ্ছে না। ফলে প্রতিদিনই কুকুরের শিকার হচ্ছে গ্রামের মানুষ ও পশু-পাখি। এ অবস্থায় গ্রামবাসীর দাবী বেওয়ারিশ কুকুর নিধনের ব্যবস্থা করা হোক।
জীবননগর উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়নের মাধবখালী গ্রামের একাধিক ব্যাক্তি অভিযোগ করে বলেন,তাদের গ্রামের ঈশা খার বাড়ীর ৫-৬ টি কুকুর প্রায় দিনই গ্রামের বিভিন্ন মানুষের গরু,ছাগল,হাঁস-মুরগী ও পথচারীদের ওপর হামলা করছে। কুকুরের এমন আচরণের কারণে গ্রামের আবাল বৃদ্ধ সবাইয়ের মধ্যে এক ধরণের আতঙ্ক বিচরণ করছে। ইতিমধ্যে গ্রামের বেশ কিছু গরু,ছাগল হাঁস-মুরগী কুকুরের হামলায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। গ্রামের মানুষ ওই কুকুরগুলো মারতে উদ্যোগ গ্রহণ করা হইলে ঈশার মারমুখী আচরণের কারণে তা সম্ভব হয়নি। ঈশার খার কুকুরের কামড়ে গ্রামের মৃত ইদ্রিস আলীর স্ত্রী সালেহা খাতুনের তিনটি গরু,রাজেদুল ইসলামের একটি ছাগল আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। অন্যদিকে একাধিক মানুষের হাঁস-মুরগীও আক্রান্ত হয়েছে।
ভুক্তভোগীদের অন্যতম রাজেদুল ইসলাম বলেন,ঈশার বাড়ীতে ৫৬ টি কুকুর রয়েছে। ওই কুকুরগুলোকে জলাতঙ্ক নাশক ভ্যাকসিনেশন করা নয়। অথচ তিনি দাবী করছে কুকুরগুলোকে মারা যাবে না। তার কুকুরের কামড়ে আমরা গ্রামবাসী পশু-পাখির পাশাপাশি শিশু সন্তানদের নিয়ে শঙ্কার মধ্যে আছি। রাস্তাঘাটে লোকজন দেখলে ওই কুকুরগুলো ধাওয়া করে। এসময় মানুষেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।
এ ব্যাপারে মনোহরপুর ইউনিয়ন পরিষদের সংশ্লিষ্ট সংরক্ষিত ওয়ার্ড মেম্বার জাহিমা খাতুন বলেন,ঘটনাটি আমি শুনেছি। ঈশা খা যদি কুকুরগুলো মারতে না দেয়,তাহলে তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.