পুলিশ লাইনস ব্যারাকের ছাদে নিজের গুলিতে কনস্টেবলের মৃত্যু

বরিশালে নিজের নামে ইস্যুকৃত সরকারী অস্ত্রের গুলিতে পুলিশের এক কনস্টেবলের মৃত্যু হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টার পর যে কোন সময় জেলা পুলিশ লাইনসের নব নির্মিত ৬তলা ব্যারাক ভবনের ছাদে এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার বেলা ১১টার পর বিষয়টি জানাজানি হলে কোতয়ালী থানা পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে।
নিহতের নাম হৃদয় চন্দ্র সাহা (২১)। তিনি ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার চকদোষ গ্রামের সুকন্ঠ চন্দ্র সাহার ছেলে। ১ বছর ৩ মাস আগে তিনি পুলিশ কনস্টেবল পদে যোগ দেন। তার কর্মস্থল ছিলো বরিশাল জেলা পুলিশ লাইন্স। পাশাপাশি তিনি জেলা পুলিশ ব্যারাকের বাসিন্দা ছিলেন। সাম্প্রতিক সময়ে তিনি জেলা পুলিশ লাইনসের ২ নম্বর গেটে সেন্ট্রি ডিউটিতে নিয়োজিত ছিলেন।
বরিশাল জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. নাঈমুল হক জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত কনস্টেবল হৃদয়ের ২ নম্বর গেটে সেন্ট্রি ডিউটি ছিলেন। এরপর ওই রাতের যে কোন সময় ৬তলা ব্যারাক ভবনের ছাদে উঠে তিনি তার নামে ইস্যুকৃত চাইনিজ রাইফেল দিয়ে নিজের থুতনি বরাবর এক রাউন্ড গুলি করেন। গুলিটি তার মস্তিষ্ক ভেদ করে বের হয়ে যায়। এ ঘটনার পর রাতভর তার মরদেহ পড়েছিলো ব্যারাকের ছাদে। পাশেই পড়েছিলো সরকারী অস্ত্রটি। শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে ওই ব্যারাক ভবনের অন্যান্য বাসিন্দারা ছাদে উঠে হৃদয়ের রক্তাক্ত লাশ পড়ে থাকতে দেখে কর্মকর্তাদের জানান। লাশের প্যান্টের পকেটে ৩টি চিরকুট পাওয়া যায়। এর একটিতে সবার উদ্দেশ্যে তিনি লিখেছেন, ‘তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়’। অপরটিতে লিখেছেন, ‘বাবা পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলাম’। তৃতীয় চিরকুটে তিনি ছোট ভাইকে তাদের ‘বাবাকে দেখভাল করার’ অনুরোধ জানিয়েছেন।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, হৃদয়ের প্যান্টের পকেটে মানিব্যাগে এক তরুণীর ছবি পাওয়া গেছে। চাঁদপুরের ওই তরুণীর সাথে হৃদয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। গত ২/৩ দিন আগে ওই তরুণীর অন্যত্র বিয়ে হয়ে যায়। এতে রাগে-ক্ষোভে ও দুঃখে হতাশাগ্রস্ত হয়ে সে আত্মহত্যা করতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (কোতয়ালী) মো. রাসেল বলেন, সুরতহাল শেষে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন তিনি।
এদিকে, ব্যারাক ভবনে কনস্টেবল হৃদয়ের আত্মহত্যার ঘটনায় পুলিশের অন্যান্য সদস্যদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.