মহিলা ডাক্তারের চেম্বারে যৌনতার আখড়া, রোগী দেখার ছলে চলছিল রমরমা ব্যবসা!

এলাকার লোকেরা এমন ঘটনায় হতবাক। মহিলাকে ডাক্তার হিসেবে সকলেই সম্মান করতেন। এর পর এমন ঘটনায় স্বাভাবিক ভাবেই এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

এই সময় ক্রাইম ডেস্ক: শহরে যৌন ব্যবসার তদন্তে বড়সড় সাফল্য পেল ভোপাল পুলিশ। নিজের ক্লিনিকেই যৌন ব্যবসার চক্র চালাচ্ছিলেন এক মহিলা ডাক্তার। ঘটনাটি ঘটেছে মধ্য প্রদেশের রাজধানী ভোপালের বারখেদি এলাকায়। পুলিশ তার সঙ্গে মোট ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে। ধৃতদের মধ্যে ৪ জন মহিলা।

পুলিশ সূত্রে খবর, এই চক্রের মাথা ছিল ৫২ বছরের এক মহিলা, যার নাম গায়ত্রী সিং। তিনি নিজে ইউনানি মেডিসিনের ডিগ্রিপ্রাপ্ত। নিজে চিকিৎসাও করেন। যদিও মহিলার ডাক্তারিতে কোনও রেজিস্ট্রেশন নেই। পুলিশ জানতে পেরেছে, মহিলা নিজে শুধু চক্র চালাতেন তা নয়, নিজেও একজন যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করতেন।

পুলিশ সূত্রে খবর, প্রায় দু’বছর ধরে শহরের ঘিঞ্জি এলাকায় রমরমিয়ে এই ব্যবসা চালাচ্ছিল ওই মহিলা। তবে পুলিশের কাছে এ নিয়ে কোনও খবরই পৌঁছয়নি এতদিন। খদ্দেরদের কাছে এই এলাকা খুবই জনপ্রিয় ছিল। জানা গিয়েছে, বাইরে থেকে এসে ক্লিনিকের দরজায় টোকা দিতেন খদ্দেররা। সেরকম ভাবেই পুলিশ সেখানে তল্লাশি চালায়। এর পর সেখান থেকে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারির পর ওই ক্লিনিকটি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। মহিলাকে জেরা করে জানা যায় সেই এই ক্লিনিকে যৌন ব্যবসা চালানোর মূল কাণ্ডারী। সঙ্গে সাহায্য করতেন বেশ কয়েকজন। জেরায় মহিলা জানিয়েছে, তার স্বামীও একজন ডাক্তার ছিলেন। ১৯৯৬ সালে এই ক্লিনিকটি স্বামীই তৈরি করিয়েছিলেন। ২০০০ সালে স্বামী মারা যান। এর পর সেখানে ইউনানি চিকিৎসা করত গায়ত্রী। নিজেই সে জানায় গত দুবছর ধরে যৌন ব্যবসা শুরু হয়েছে সেখানে।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.