কাশ্মীর ইস্যু: যুদ্ধের কথাও ভাবছেন ইমরান খান

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে দ্বিখণ্ডিত করার পর পাকিস্তানের জাতীয় সংসদের জরুরি অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) জরুরি যৌথ এ অধিবেশনে কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের করণীয় কী তা নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়।

অধিবেশনে ক্ষমতাসীন পাকিস্তান তেহরিকে ইনসাফ বা পিটিআই দলের সদস্যদের পাশাপাশি নওয়াজ শরীফের মুসলিম লীগ ও বিলওয়াল ভুট্টোর পাকিস্তান পিপলস পার্টি বা পিপিপিসহ- অন্য দলগুলো অংশ নেয়।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান অধিবেশনে অংশ নিয়ে বলেন, পাকিস্তান সরকার প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটাতে চেয়েছিল এবং ভারতকে শান্তি আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু ভারত আলোচনার প্রস্তাবকে দুর্বলতা হিসেবে নিয়েছে।

ইমরান খান বলেন, তিনি আশংকা করছেন পুলওয়ামার মতো ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটবে এবং পাকিস্তানকে দোষারোপ করবে দিল্লি। এরপর তারা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে হামলা চালাবে এবং পাকিস্তান তার জবাব দেবে। ভারত যুদ্ধ ঘোষণা করলে পাকিস্তানও একই ব্যবস্থা নেবে এবং শেষ রক্তবিন্দু পর্যন্ত পাকিস্তান লড়াই করবে। 

এ সময় ইমরান খান কাশ্মীর ইস্যুকে গুরুত্বসহকারে নেয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদয়ের প্রতি আহ্বান জানান। 

তিনি বলেন, ভারতীয় সেনাদের নির্যাতন ও কাশ্মীরি জনগণের দুর্ভোগের কথা তিনি পশ্চিমা বিশ্বকে অবহিত করবেন।   

যৌথ অধিবেশনে মুসলিম লীগ নেতা শাহবাজ শরীফসহ অনেকেই কাশ্মীর ইস্যুতে সরকারকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার আহ্বান জানান। এমন সিদ্ধান্ত নিলে বিরোধীদলগুলো সরকারকে সমর্থন দেবে বলে শাহবাজ শরীফ উল্লেখ করেন।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.