ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনায় আক্রান্ত নন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনায় আক্রান্ত হননি বলে জানিয়েছে প্রেসিডেন্টের দফতর হোয়াইট হাউজ। সম্প্রতি তিনি করোনা ভাইরাসের টেস্ট করিয়েছেন। টেস্টের ফলাফল নেগেটিভ এসেছে বলে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক নিশ্চিত করেছেন।

বিশ্বব্যাপী করোনা বিস্তৃত হয়ে পড়েছে। সময়ের সঙ্গে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যাও বাড়ছে। এরই মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, এমন কয়েকজন ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেছিলেন ট্রাম্প। ফলে তার স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ দেখা দিয়েছিল। সে কারণেই তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে।

সম্প্রতি ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে শোনা যায়। যদিও বিষয়টি অস্বীকার করেছে ব্রাজিল। তার একটি প্রতিনিধি দলের বেশ কয়েকজন সদস্য সম্প্রতি ফ্লোরিডায় সফর করেছেন। তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়েছিল ট্রাম্পের। করোনা ভাইরাস মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হয়। সে কারণেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েন সবাই।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ব্যক্তিগত চিকিৎসক সিন কনলে বলেন, আজ সন্ধ্যায় আমি নিশ্চিত হয়েছি যে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের করোনা ভাইরাসের ফলাফল নেগেটিভ এসেছে।

তিনি বলেন, মার এ লোগোতে এক সপ্তাহ আগে ব্রাজিলের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে নৈশভোজে অংশ নিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। কিন্তু তিনি করোনা ভাইরাসের লক্ষণ থেকে মুক্ত রয়েছেন।

এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে নতুন ৮ জনসহ ৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন ৫৮৯ জনসহ আক্রান্ত হয়েছে ২ হাজার ৮৩৬ জন। কিন্তু শুরু থেকেই করোনাকে ততটা বিপজ্জনক বলে মানতে নারাজ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মীদের বাড়ি থেকেই কাজ করার পরামর্শ দিয়েছে। এমনকি সব স্কুল, বিশ্ববিদ্যালয়ও বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। শনিবার প্রথমবারের মতো করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নিউ ইয়র্কে একজনের মৃত্যু হয়।

এদিকে অপ্রয়োজনীয় সফর এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, আমাদের এ বিষয়টার সমাপ্তি ঘটানো দরকার। আমরা চাই না যে, আরো বেশি মানুষ এ ভাইরাসে আক্রান্ত হোক।

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে ৪৯৯ জনসহ মোট মৃত্যু হয়েছে ৫ হাজার ৮৩৫। শুধু চীনেই মৃতের সংখ্যা ৩ হাজার ১৯৯। চীনের বাইরে নিহত হয়েছে ২ হাজার ৬৩৬। 

এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে মোট আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৫৬ হাজার ৫২৯। এর মধ্যে ৭৫ হাজার ৯১৯ জন সুস্থ হয়েছে বাড়ি ফিরেছেন। এছাড়া চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৮২৪। চীনের বাইরে ৭৫ হাজার ৭০৫ মানুষ। 

বর্তমানে ৭৪ হাজার ৭৭৫ জন আক্রান্ত রয়েছেন। তাদের মধ্যে ৬৮ হাজার ৭৮৭ জনের অবস্থা স্থিতিশীল অথবা উন্নতির দিকে এবং বাকি ৫ হাজার ৮৮৮ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। 

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, করোনা ভাইরাস বয়স্ক ব্যক্তি এবং আগে থেকেই অসুস্থ এমন ব্যক্তিদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। এখন পর্যন্ত যারা মারা গেছেন তাদের অধিকাংশই বয়স্ক লোকজন।

ভাইরাস সংক্রমণের কারণে চীনসহ অধিক আক্রান্ত দেশ ভ্রমণে সতর্কতা, নিষেধাজ্ঞা এবং কড়াকড়ি আরোপ করেছে প্রায় সকল দেশ। ভাইরাসের কারণে, বিশ্বের অনেক দেশ তাদের নাগরিকদের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। অধিকাংশ বিমান সংস্থার ফ্লাইট বাতিল করা হচ্ছে। 

চীনে উদ্ভূত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ১৫১টি দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে।

যেসব দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে-

নিহত হওয়া দেশগুলোর মধ্যে চীনে ৩ হাজার ১৯৯, ইটালিতে ১ হাজার ৪৪১, ইরানে ৬১১, দক্ষিণ কোরিয়ায় ৭৫, যুক্তরাষ্ট্র ৫৭, ফ্রান্স ৯১, স্পেন ১৯৬, জাপান ২২, ডায়মন্ড প্রিন্সেস জাহাজে ৭, ইরাক ১০, হংকং ৪, অস্ট্রেলিয়া ৩, যুক্তরাজ্য ২১, নেদারল্যান্ড ১২, জার্মানি ৯, ইন্দোনেশিয়া ৫, বেলজিয়াম ৪, সুইজারল্যান্ড ১৩, সান ম্যারিনো ৫, লেবানন ৩, ফিলিপাইন ৮, মিশর ২, আর্জেন্টিনা ২, পোলান্ড ৩, আয়ারল্যান্ড ২, ভারত ২, নরওয়ে ৩, সুইডেন ২, বুলগেরিয়া ২, আলজেরিয়া ৩, গ্রীস ৩, পানামা, স্লোভেনিয়া, মরক্কো, থাইল্যান্ড, অস্ট্রিয়া, কানাডা, লুক্সেমবার্গ, আলবেনিয়া, পানামা, পানামা, ইকুয়েডর, আজারবাইজান, ডেনমার্ক, মরক্কো, ইউক্রেন, সুদান, গায়ানা ও তাইওয়ানে ১ জন করে। 

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.