সর্ববৃহৎ বস্তিতে করোনার থাবা,ঝুকিতে কয়েক লাখ মানুষ

নিউজ ডেস্ক: ভারতের মুম্বাইয়ের সবচেয়ে বড় বস্তি ‘ধারাভিতে’ ঢুকে পড়েছে করোনাভাইরাস। এতে আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যুও হয়েছে। একইসঙ্গে একদিনে রেকর্ড সংখ্যক মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবরও পাওয়া গেছে।

মুম্বাইয়ের এ বস্তিতে করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তির বয়স ৫৬। এরই মধ্যে ওই ব্যক্তির বাড়ি সিল করে দেয়া হয়েছে। বাড়ির বাকিদের করোনা পরীক্ষা হয়েছে।

সব মিলিয়ে ভারতে করোনায় মারা গিয়েছেন ৫০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৫৭ জন। তার মধ্যে অন্ততপক্ষে ২০০ জন তাবলিগের জমায়েত থেকে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মোট আক্রান্ত এক হাজার ৯৬৫ জন।

ধারাভি হলো এশিয়ার সবচেয়ে বড় বস্তি। এখানকার অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিয়ে বিশেষজ্ঞরা অতীতে বারবার তাদের আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন। সেই ধারাভিতে করোনা ঢুকে পড়ায় বিশেষজ্ঞরা রীতিমতো চিন্তিত।

শুধু ধারাভি নয়, দিল্লির নিজামুদ্দিনে তাবলিগের জমায়েত থেকে যাওয়া প্রচারকারীদের মাধ্যমেও দেশের গরিব এলাকাগুলিতে করোনা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

জানা যায়, তাবলিগের জমায়েতে যোগ দেয়া প্রায় ৪০০ জনের করোনা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি হয়েছে তামিলনাড়ুতে, সেখানে ১৯০ জন আক্রান্ত। এ ছাড়া অন্ধ্রে ৭১, দিল্লিতে ৫৩, তেলেঙ্গানায় ২৮, অসমে ১৩, মহারাষ্ট্রে ১২, আন্দামানে ১০, জম্মু ও কাশ্মীরে ছয়, গুজরাট ও পুদুচেরিতে দু’জন করে আক্রান্ত হয়েছেন।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, তাবলিগের সঙ্গে জড়িত অন্তত নয় হাজার জনের করোনার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। এর মধ্যে সাত হাজার ৬৮৮ জন তাবলিগের স্থানীয় কর্মী এবং এক হাজার ৩০৬ জন বিদেশি। তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। বাকিদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ধারাভিতে করোনা ঢুকে গিয়েছে। তাবলিগের প্রচারকারীরা করোনা আক্রান্ত হলে, দেশের বিভিন্ন রাজ্যে গরিব এলাকায় করোনা ছড়িয়ে পড়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। তাই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় রীতিমতো চিন্তিত। ধারাভিতে পাঁচ বর্গ কিলোমিটারের মধ্যে ১০ লাখেরও বেশি গরিব মানুষ থাকেন। অপরিসর নোংরা রাস্তা, খোলা নিকাশি নালা, গায়ে গায়ে বাড়ি, একটা ঘরে প্রচুর লোক গাদাগাদি করে থাকেন। এ হেন ধারাভিতে করোনা ঢুকে পড়া মানে পরিস্থিতি যে কোনও সময় ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পার্থ প্রতিম বোস বলেন, আমরা ঠিক এই আশঙ্কাই করছিলাম। ধারাভিতে এবং দেশের গরিব এলাকায় করোনা ঢুকে পড়লে তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা থেকেই যায়।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.