সৌদি নারীরা পুরুষ সঙ্গী ছাড়াই দেশের বাইরে ঘুরতে পারবেন

ধর্মীয় রীতিনীতি ও রক্ষণশীলতা ভেঙে আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে শুরু করেছে সৌদি আরব। বিশেষত দেশটির নারীদের জন্য আরোপিত বেশ কিছু বিধিনিষেধ এরইমধ্যে তুলে নেয়া হয়েছে। 

এরই ধারাবাহিকতায় এখন দেশে সৌদির নারীদের দেশের বাইরে ভ্রমণ করতে আর কোনও পুরুষ সঙ্গী বা অভিভাবক লাগবে না। ওই নারী চাইলে একাই দেশের বাইরে ভ্রমণ করতে পারবেন। 

গতকাল শুক্রবার রাজকীয় এক ডিক্রিতে এ ঘোষণা দেয়া হয়েছে। 

এর ফলে কোনও পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি ছাড়াই এখন ২১ বছরের বেশি বয়সী যে কোনও সৌদি নারী পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

নতুন ডিক্রি অনুযায়ী সৌদি নারীরা এখন শিশুদের জন্ম নিবন্ধন, বিবাহ ও তালাক নিবন্ধন করতে পারবে। ডিক্রিতে নারীর কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রও অনেকটা সম্প্রসারিত হচ্ছে। কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে শারিরীক কোনো অক্ষমতা, লিঙ্গ বা বয়সের কারণে কোনো বৈষম্য করা হবে না।

এতদিন সৌদি নারীদের স্বামী, পিতা বা অন্য কোনো পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি ছাড়া পাসপোর্ট বা বাহিরে ভ্রমণের অনুমতি দেয়া হতো না। ২০১৬ সালে মোহাম্মদ বিন সালমান ক্রাউন প্রিন্সের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে নারীদের বিভিন্ন অধিকার প্রদান করেন। 

দেশে নির্যাতিত হওয়ার অভিযোগ এনে সম্প্রতি কয়েকজন সৌদি তরুণী দেশের বাইরে পালিয়ে যান। এর পরই এ নিয়ে নতুন ডিক্রি জারি হলো।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.