টাকা শোধ করতে না পেরে মেয়েকে মহাজনের হাতে দিল বাবা!

রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর এলাকায় এক ব্যক্তি মহাজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তা শোধ না করতে পেরে নিজের কিশোরী মেয়েকে মহাজনের হাতে তুলে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। 

অভিযোগ আছে, সুবিধাভোগী ওই মহাজন মেয়েটিকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে। পরে সরকারের জরুরি হেল্পলাইন ৯৯৯-এ ফোন দিলে মেয়েটিকে উদ্ধার করে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয় মেয়েটির পাষণ্ড বাবাকে। 

ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীকে মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) রাতে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে।

কামরাঙ্গীরচর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শেখ মো. মোর্শেদ আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। 

, পুলিশ সূত্রে জানা গেছে,  ধর্ষণের শিকার কিশোরীর বয়স ১৩ বছর। তার মা প্রবাসী। সে বাবার সঙ্গে কামরাঙ্গীরচর থাকে। তার বাবা আবুল (৩৬) নামের এক ব্যক্তির মুরগির দোকানের কর্মচারী। দোকান মহাজন আবুল প্রায় এক বছর আগে ওই কিশোরীর বাবাকে ছয় হাজার টাকা ধার দেয়। সেই টাকা পরিশোধ করতে পারেনি কিশোরীর বাবা। পরে আবুল তার মেয়ের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করার কুপ্রস্তাব দেয়। এর পর থেকেই কিশোরীর সঙ্গে সম্পর্ক করার চেষ্টা করছিল আবুল। পরে বাবার সহায়তায় একপর্যায়ে কিশোরীকে রাজি করায় আবুল। এরপর দীর্ঘদিন বাবার সহায়তায় কিশোরীকে ধর্ষণ করে ওই মহাজন।

সর্বশেষ গত ১১ জানুয়ারি কিশোরীকে ধর্ষণ করে আবুল। এরপর ওই কিশোরী পাশের বাসার এক নারীর কাছে ঘটনা খুলে বলে তাকে বাঁচাতে বলে। পরে ওই প্রতিবেশী মঙ্গলবার বিকেলে ৯৯৯-এ ফোন দিলে ওই বাসা থেকে কিশোরীকে উদ্ধার ও বাবাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 

এসআই শেখ মো. মোর্শেদ আলী আরও জানান, ওই প্রতিবেশী বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। গ্রেফতার ওই কিশোরীর বাবাই কৌশলে ফোন দিয়ে দোকান মালিক আবুলকে পালিয়ে থাকতে বলেন। তবে মহাজন আবুলকে গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.