জ্বালানি তেলের দাম কমল আন্তর্জাতিক বাজারে

আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দর আজ সবচেয়ে কম। ব্যারেলপ্রতি জ্বালানি তেলের দর এখন ৮০ ডলারের নিচে নেমে এসেছে।

তেলের দাম কমল কেন?

বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, গত ৭ অক্টোবর ব্যারেলপ্রতি জ্বালানি তেলের দর ছিল ৭৯ দশমিক ২৮ ডলার। আজ একপর্যায়ে দর এর নিচে নেমে গিয়েছিল। তারপরে অবশ্য সামান্য একটু বেড়ে হয়েছে ৮০ ডলার ৫১ সেন্ট।

আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ছিল। হঠাৎ করে কমার কারণ নিয়েও চলছে নানা বিশ্লেষণ। রয়টার্স জানাচ্ছে, এটি সম্ভব হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের অনুরোধ চীন রেখেছে বলেই। বাইডেন প্রশাসন তার মিত্রদের কাছে অনুরোধ করেছিল যাতে দেশগুলো তাদের সংরক্ষিত (রিজার্ভ) তেল বাজারে ছেড়ে দেয়। আর সবাইকে অবাক করে দিয়ে চীন এ কাজটিই করেছে। যুক্তরাষ্ট্র-চীন অনেক দিন ধরেই বাণিজ্যযুদ্ধে লিপ্ত। কোভিড-১৯–এর সংক্রমণ ও ট্রাম্পের পরাজয় সেই বাণিজ্যযুদ্ধ কিছুটা কমিয়ে রাখলেও একেবারেই শেষ হয়ে যায়নি। কিন্তু চীন যে যুক্তরাষ্ট্রের এই অনুরোধ রাখবে তা অনেকেই আশা করেননি। তবে চীনের এই সিদ্ধান্ত বাজারকে প্রভাবিত করেছে, কমেছে তেলের দর।

প্রতিটি দেশই আপত্কালীন সময়ের জন্য জ্বালানি তেলের একটি সংরক্ষিত অবস্থায় রাখে। মূলত এটি শুরু হয়েছিল ১৯৭০ সালে, যখন আরব দেশগুলো তেল বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল। এরপর এই ধরনের আরেকবার নিয়েছিল ২০১১ সালে, যখন ওপেক সদস্য লিবিয়া যুদ্ধে জড়িয়ে যায়।

তেলের দর গত অক্টোবর থেকে বাড়া শুরু করেছিল মূলত তেল রপ্তানিকারক দেশগুলোর সংগঠন ওপেকের এক সিদ্ধান্তে। তারা আগের লোকসান তুলে আনতে জ্বালানি তেলের উত্তোলন কমিয়ে দেয়। যেহেতু বিশ্ব অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথে রয়েছে, ফলে বাড়ছিল তেলে চাহিদা। আবার কোভিড সংক্রমণের সময় সরবরাহ ব্যবস্থা বাধাগ্রস্ত হওয়ায় এমনিতেই বিভিন্ন ধরনের পণ্যের দাম বাড়ছিল। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ চিন্তিত মূল্যস্ফীতির চাপ নিয়ে। এ রকম একসময় চাহিদা বৃদ্ধি ও জোগান কমে যাওয়ায় জ্বালানি তেলের দর ব্যারেলপ্রতি ৮৫ ডলার ছাড়িয়ে গিয়েছিল। ২০১৪ সালের পরে এটাই ছিল সর্বোচ্চ দর।

বিশেষ করে অর্থনীতির পুনরুদ্ধারের সময়ে তেলের দাম বাড়ানোর সমর্থন নেই কারোরই। কিন্তু বাংলাদেশ সরকারের সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা না করে ভেবেছে কেবল বিপিসির কথা, পরিবহন খাতের প্রভাবশালী মালিকদের কথা।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে যেহেতু সারা বিশ্বই চিন্তিত, সেহেতু সবাই একটি পথ খুঁজছিল। তারই অংশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের এই পদক্ষেপ।

 

আরও পড়ুন

রাজনীতি  আন্তর্জাতিক খেলাধুলা লাইফস্টাইল সারাদেশ  

 

 

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.