প্রতিবন্ধীকে কুপিয়ে হত্যা

ইয়ানূর রহমান,যশোর: যশোরের ঝিকরগাছায় নয়ন হোসেন নামে এক বাক প্রতিবন্ধীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে স্থানীয় একটি গ্রুপ। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো দুই যুবক। শনিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ হামলার ঘটনা ঘটে। অভিযোগ রয়েছে পানিসারা ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের মেম্বার গোলাম সরোয়ারের নেতৃত্বে হামলা করা হয়।

নিহত নয়ন হোসেন ঝিকরগাছার পানিসারা ইউনিয়নের টাওরা উত্তরপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে। আহতরা হলেন একই গ্রামের আব্দুল কাদেরের ছেলে জহুরুল ইসলাম ও মৃত হানিফের ছেলে আশা। জহুরুলকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ও আশাকে ঝিকরগাছা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিহতের ভাই সুজন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় খেলার মাঠে যুবকরা ফুটবল খেলছিলেন। খেলার মধ্যে ল্যাং মারাকে কেন্দ্র করে পানিসারা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার গোলাম সরোয়ারের ছেলে বকুল বিপক্ষ দলের মেহেদীকে মারপিট করে। এ ঘটনার জের ধরে দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও মারামারি হয়। পরে শনিবার রাতে মীমাংসার জন্য শালিস হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই সন্ধ্যার পরপরই মেম্বর সরোয়ার ও তার দুই ছেলে বকুল ও জাহিদ ধারালো দা দিয়ে নয়নকে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় জহুরুল ও আশা ঠেকাতে গেলে মেম্বর তাদেরকেও কুপিয়ে জখম করে।

পরে স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখানে নয়ন ও জহুরুলের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে রেফার করেন। স্বজনরা রাত আটটার দিকে নয়ন ও জহুরুলকে জরুরি বিভাগে আনলে চিকিৎসক নয়নকে মৃত ঘোষণা করেন।

জরুরি বিভাগে ডা. অমিয় দাস জানান, হাসপাতালে আনার পথে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে নয়নের মৃত্যু হয়েছে। তার গলায় ও বুকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। পানিসারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নওশের আলী জানান, মেম্বর সরোয়ারের লোকজন বাকপ্রতিবন্ধী ছেলে নয়নকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে সামান্য বিরোধের জের ধরে এ হত্যার ঘটনা ঘটে। ঝিকরগাছা থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, নয়নকে কুপিয়ে হত্যার সাথে জড়িতদের আটকে পুলিশ চেষ্টা করছে।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.