ইডির জিজ্ঞাসাবাদের তালিকায় ঋতুপর্ণা

দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে গোয়েন্দারা জেরার জন্য তলব করেছেন। কলকাতার গণমাধ্যম সূত্রে এই খবর জানা গিয়েছে।

ঋতুপর্ণার বিরুদ্ধে ভারতের সবচেয়ে বড় অর্থ কেলেঙ্কারির সারদা-নারদাকাণ্ডে পরোক্ষভাবে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠছে।

যদিও এই বিষয়ে ঋতুপর্ণা এখনও সাংবাদিকদের কিছু বলেননি। আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্যও পাওয়া যায়নি কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সম্যান্ট ডিরেক্টরেট বা ইডির কলকাতা অফিস থেকে।

বিভিন্ন সূত্র বলছে, ২০১৪ সাল থেকে ভারতের সবচেয়ে আলোচিত পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের ‘চিটফান্ডকাণ্ড’- প্রকাশিত হয়। এরপর, সারদা গ্রুপ, রোজভ্যালিসহ একাধিক বেআইনি সংস্থার খবর প্রকাশ্যে আসে।

তথ্য ফাঁস হয় হাজার হাজার কোটি টাকা বাজার থেকে কীভাবে প্রতারণা করে তোলা হয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় ত্রিশ হাজার কোটি টাকার এই অর্থ কেলেঙ্কারিকে ভারতের সবচেয়ে বড় অর্থ দুর্নীতি হিসেবে ধরা হয়ে থাকে।

গোয়েন্দা সূত্র মতে, রোজভ্যালি গ্রুপের সঙ্গে কলকাতার টালিগঞ্জের একঝাঁক অভিনেতা-অভিনেত্রী পরোক্ষভাবে জড়িত। ওই সংস্থাটি টলিপাড়ায় কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছিলো এবং বহুবার সিনিয়র শিল্পীদের নিয়ে দেশের বাইরে গিয়েছেন রোজভ্যালির কর্ণধার গৌতম কুণ্ডু।

তদন্তকারী সংশ্লিষ্ট গোয়েন্দারা মনে করছেন, শিল্পীদের হাত দিয়ে দেশের টাকা বাইরে গিয়েছে। কোন শিল্পী এই কাজের সঙ্গে জড়িত; সেটিই খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সে কারণে ডাকা হয়েছে ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে।

ইডি সূত্রের বরাত দিয়ে কলকাতার গণমাধ্যমের দাবি, আগামী সপ্তাহের সল্টলেকের ইডি দপ্তরে জেরার মুখে বসতে পারেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।

ইতোমধ্যে টালিগঞ্জের শীর্ষ অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কেও ডেকে পাঠানো হয়েছে। আগামী ১৯ জুলাই সল্টলেকের গোয়েন্দাদের জেরার মুখে বসছেন ওই অভিনেতা। সেটি গতকাল (৯ জুলাই) নিজের মুখে স্বীকারও করেছেন।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.