‘তুলে নিয়ে গিয়ে, মাদক খাইয়ে শরীর খুবলে খেয়েছে ওরা’, গ্র্যামি-বিজয়িনীর জবানবন্দি!

গ্র্যামি-বিজয়ী গায়িকাকে দীর্ঘদিন ধরে আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে দাবি ডাফির। সে কারণে অনেকদিন ধরেই গানের জগতের বাইরে তিনি। যদিও সে বিষয়ে নিজেকে সামলানোর সময় চেয়েছেন ফ্যানেদের কাছে।

এই সময় বিনোদন ডেস্ক: গ্র্যামি-পুরস্কারে সমৃদ্ধ গায়িকা ডাফি। জীবনের এক কালো অধ্যায়ের কথা শেয়ার করলেন ইনস্টাগ্রামে। দীর্ঘদিন ধরেই দর্শকের চোখের আড়ালে রয়েছেন তিনি। কিন্তু কেন? নিজেকে গুছিয়ে ফের একবার গানের জগতে, দর্শকের মাঝে নিয়ে আসতে সময় নিয়েছেন তিনি। কারণ, তাঁর শরীরকে পণ্য হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে বলেই দাবি গায়িকার। দীর্ঘদিন তাঁকে আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন গায়িকা।

ইনস্টাগ্রামে নিজের ছবি-সহ দীর্ঘ পোস্টে ডাফি ফ্যানেদের কাছে সাহায্যের আবেদন করেছেন। মঙ্গলবার পোস্ট করে ডাফি ফিরে আসার জন্য তাঁর সময় নেওয়ার কারণ বর্ণনা করেছেন। তিনি লিখেছেন, ‘আপনারা ভাবতে পারেন কেন আমি আমার গলা ব্যবহার করিনি নিজজের বেদনা প্রকাশের জন্য। আমি আসলে চাইনি পৃথিবী আমার চোখে দুঃখ দেখুক। আমি নিজেকে জিগ্গেস করেছি, আমি কীভাবে গাইব যদি হৃদয়ই ভেঙে যায়। খুব ধীরে ধীরে সে ক্ষতে মলম পড়ল।’

২০০৮ সালে ডাফির প্রথম অ্যালবাম প্রকাশ হয় ‘রকফেরি’। গ্র্যামিতে এটি সেরা পপ ভোকাল অ্যালবামের পুরস্কার পেয়েছিল। তাঁর গান ‘মার্সি’ অসম্ভব জনপ্রিয়তা পায়। এর পর ২০১০-এ প্রকাশিত হয় অ্যালবাম ‘এন্ডলেসলি’। যদিও তার পর থেকেই তিনি আর গান গাননি। যদিও ধীরে ধীরে নিজেকে সামলাতে চেয়েছেন তিনি।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.