নিষিদ্ধ ওষুধ আনা হচ্ছে, কার্যকারিতা নিয়ে ফখরুলের প্রশ্ন

দুর্নীতির মাধ্যমে বিদেশ থেকে ডেঙ্গুর ওষুধ আনা হয়, থাইল্যান্ড থেকে নিষিদ্ধ ওষুধ আনা হচ্ছে বলে অভিযোগ করে এই ওষুধের কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রবিবার (৪ আগস্ট) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলরূমে বিএনপিপন্থি চিকিৎসকদের সংগঠন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। 

তিনি বলেন, ‘খবর এসেছে, ডেঙ্গু মশার ওষুধ কার্যকর হচ্ছে না। হবে কোথা থেকে? যে দুর্নীতি তারা করেন, সেখানে কার্যকর হবে কোথা থেকে। এখন নতুন ওষুধ আনতেছে, সেখানে আরও দুর্নীতি হবে। আর আজকে পত্রিকার বের হয়েছে, দুটি ওষুধ থাইল্যান্ডে নিষিদ্ধ করা হয়েছে, সেগুলো আনা হচ্ছে। আরও দুটি ওষুধ যে আনা হবে, তার কার্যকারিতা সম্পর্কে তারা জানেন না! তারা আমদানি করছেন, কোলকাতার ডেপুটি মেয়রকে। এই অবস্থায় এই সরকার, এই মন্ত্রী। জাহিদ ভাই কিছুক্ষণ আগে বললেন, হীরক রাজার দেশে। হীরক রাজার দেশ থেকে এটা নরক দেশ হয়েছে। হবুচন্দ্র রাজার গবুচন্দ্র মন্ত্রী।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের বিষয়ে… আপনারা সবাই তাকে চেনেন, ম্যাডামের প্রেস উইং শায়রুল কবির খান আমাকে দুটি লিঙ্ক পাঠালেন। আমাদের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, কতজন ডেঙ্গুতে মারা গিয়েছে, উনি তা বলতে পারবেন না। এটা তার জানা নেই। এরআগে উনি বিদেশে যাওয়া আগে বললেন, এডিস মশা রোহিঙ্গাদের মতো। কত বড় অমানবিক এবং কতবড় অমানুষ হলে এধরনের কথা একজন মন্ত্রীর মুখে মানায়।’

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘কেউ হতাশ হবেন না। আমি অনেকের কথার ভেতরে হতাশা খোঁজে পাই। হতাশ হলে চলবে না। হতাশা ভেঙে আশার আলো নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। আমাদের হতাশা কাটিয়ে জনগণকে সাথে নিয়ে মাথা উচু করে দাঁড়াতে হবে এবং জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এদেরকে পরাজিত করতে হবে।’

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘অনির্বাচিত সরকার যারা আছেন, যারা ভোটে নির্বাচিত হয়নি, গায়ের জোরে বন্দুকের জোরে যারা বসে আছেন তাদের কাছে পরিস্কার করে বলতে চাই, সময় শেষ হওয়ার আগেই এই সংসদ বাতিল করুন। এই নির্বাচন বাতিল করুন। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় এদেশের জনগণ জানে কিভাবে এই ধরনের সরকারকে কীভাবে পরাজিত করতে হয়।’

ড্যাবের ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এই আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. হারুন আল রশীদ। 

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ও ড্যাবের সাবেক মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এজেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. সিরাজউদ্দীন আহমেদ, অধ্যাপক ডা. আব্দুল কুদ্দুস, ড্যাবের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. আব্দুস সালাম, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাদের গণি চৌধুরী, বিএনপির সহ-প্রচার সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম প্রমুখ। 

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.