সুষ্ঠু নির্বাচন হলে শাহাদাত জয়ী হবে: নোমান

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে জয়লাভের জন্য আমরা অংশ নিয়েছি। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ডা. শাহাদাত হোসেন বিপুল ভোটে জয়ী হবে। বুলেটের চেয়ে ব্যালট শক্তিশালী। ২৯ মার্চ চট্টগ্রামবাসী ব্যালটের মাধ্যমে জবাব দিবে।

মঙ্গলবার (১০ মার্চ) চসিক নির্বাচনের প্রচারণার দ্বিতীয় দিন বিএনপির মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেনের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় তিনি এই কথা বলেন।

আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেন, ৯০ এর গণ আন্দোলনের পর লালদিঘীর মাঠে বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসে চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। ২০০১ সালে এসে আমরা বাণিজ্যিক রাজধানী করার জন্য মন্ত্রী পরিষদে বিল পাস করি। শুধু নগরী নয় বৃহত্তর চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে সাজাতে আমাদের পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে তা বাস্তবায়ন করেনি। আজ পত্রিকায় দেখলাম আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে সাজাবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। আমার প্রশ্ন হলো, এটাতো অনেক আগেই বিএনপি বাস্তবায়িত করে রেখেছিল। কিন্তু বর্তমান সরকার এটা করেনি
কেন?

তিনি বলেন, জলাবদ্ধতা চট্টগ্রামের প্রধান সমস্যা। সরকার আসছে সরকার যাচ্ছে কিন্তু জলাবদ্ধতার ব্যাপারে কিছুই হচ্ছেনা। আমাদের সুযোগ্য মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন নির্বাচিত হলে জলাবদ্ধতা ছাড়াও করপোরেশনের মাধ্যমে যে সব উন্নয়ন কাজ করা দরকার আমরা করবো। আমি চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসনে বাজেটে আলাদা অর্থ বরাদ্ধ করার দাবি জানাচ্ছি।

বিএনপি মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, যে এলাকায় গণসংযোগ করছি এই এলাকাগুলো অবহেলিত। সিটি করপোরেশন একটি সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান। আমি সবার সঙ্গে মতবিনিময় করে সব কিছু চিহ্নিত করে পরিকিল্পতভাবে উন্নয়নের জন্য এগিয়ে যাব।

তিনি বলেন, আপনাদের ভোটাধিকার রক্ষার জন্য ভোট কেন্দ্রে যাবেন। ধানের শীষে ভোট দিবেন। জনগণের দল বিএনপি। বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল তখন দেশে উন্নতি হয়েছে। সেজন্য জনগণ আমাদেরকে চায়। কিন্তু দিনের ভোট রাতে নিয়ে ফেলার কারণে জনগণ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারছে না। এবার আপনারা ভয়কে জয় করে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে আমাকে ধানের শীষে ভোট দিয়ে দেশ নেত্রীকে মুক্ত করতে সহায়তা করবেন।

আবদুল্লাহ আল নোমানকে সঙ্গে নিয়ে ডা. শাহাদাত হোসেন বিএনপির সাবেক হুইপ সৈয়দ ওয়াহিদুল আলমের কবর জেয়ারতের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন। পরে ১ নম্বর দক্ষিণ পাহাড়তলি ওয়ার্ডের লালিয়ার হাট, আমান বাজার, খোসাল শাহ সড়ক, বড়দিঘীর পাড়, ভাটিয়ারি রোড, ৩ নম্বর বাজার, ফতেয়াবাদ, চৌধুরীহাট, চড়ারকূল, স্টেশন রোড, সন্দ্বীপ কলোনী, ২ নম্বর জালালাবদ ওয়ার্ডের বালুছড়া বাজার, ইব্রাহীম কটন মিল, নতুন পাড়া, তুফানী রোড, খন্দকিয়া হাট, জমাদার পাড়া, কূলগাঁও, ৩ নম্বর পাঁচলাইশ ওয়ার্ডের অক্সিজেন মোড়, রউফাবাদ, মুরাদ নগর, কামরাবাদ, ছামাদপুর, হাজীপাড়া, খন্দকার পাড়া, চালিতাতলি সড়কে নির্বাচনী প্রচারণা করা হয় দ্বিতীয় দিনের।

নেতৃবৃন্দ সাধারণ মানুষের সঙ্গে সালাম ও কুশল বিনিময় করেন। নেতা-কর্মীরা ধানের শীষের পক্ষে প্রচারপত্র বিলি করে জনগণের কাছে মেয়র পদে ডা. শাহদাত হোসেনকে বিজয়ী করার জন্য ভোট চান।

নির্বাচনী প্রচারণায় উপস্থিত ছিলেন নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সফিয়ান, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মীর মো. হেলাল উদ্দীন, সাথী উদয় কুসুম বড়ুয়া, চাকসুর ভিপি নাজিম উদ্দিন ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোস্তাক আহাম্মদ খান।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.