স্বল্প সময়েই সম্পদের পাহাড় গড়েন পাপিয়া

বহিস্কৃত নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়াকে গ্রেপ্তারের পর তার সম্পদ ও বিলাসবহুল জীবন সম্পর্কে অনেক তথ্য উঠে আসছে। সুনির্দিষ্ট পেশা না থাকা সত্ত্বেও স্বল্প সময়ে বিপুল পরিমাণ সম্পত্তি ও অর্থবিত্তের মালিক হয়েছেন তিনি।
আজ রোববার কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-১’র অধিনায়ক লে. কর্নেল শাফী উল্লাহ বুলবুল বলেন, রাজধানীর ফার্মগেট এলাকার ইন্দিরা রোডে তার ২টি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট, নরসিংদী শহরে ২টি ফ্ল্যাট, বিলাসবহুল ব্যক্তিগত গাড়ি ও নরসিংদীর বাগদী এলাকায় ২ কোটি টাকা মূল্যের ২টি প্লট আছে।
এছাড়াও তেজগাঁও এফডিসি গেট সংলগ্ন এলাকায় অংশীদারীত্বে ‘কার এক্সচেঞ্জ’ নামক গাড়ির শো রুমে প্রায় ১ কোটি টাকা বিনিয়োগ আছে পাপিয়ার। নরসিংদী জেলায় ‘কেএমসি কার ওয়াস অ্যান্ড অটো সলিউশন’ নামক প্রতিষ্ঠানে ৪০ লাখ টাকা বিনিয়োগ আছে তার। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন ব্যাংকে নামে-বেনামে অনেক এ্যাকাউন্টে বিপুল পরিমাণ অর্থ গচ্ছিত আছে।
প্রাথমিক অনুসন্ধানের তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব আরও জানায়, পাপিয়া ও তার স্বামী মতি সুমন নরসিংদীতে মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি, চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণা, জমির দালালি, সিএনজি পাম্পের লাইসেন্স প্রদান, গ্যাস লাইন সংযোগ দেওয়ার কথা বলে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করে আসছে। পর্যন্ত পুলিশের এসআই ও বংলাদেশ রেলওয়েতে বিভিন্ন পদে চাকুরী দেয়ার নামে ১১ লাখ টাকা, একটি কারখানায় অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেয়ার কথা বলে ৩৫ লাখ টাকা, একটি সিএনজি পাম্পের লাইসেন্স করে দেয়ার কথা বলে ২৯ লাখ টাকা তারা আদায় করেছে বলে তথ্য মিলেছে। এছাড়া ঢাকা ও নরসিংদী এলাকায় চাঁদাবাজি, মাদক ও অস্ত্র ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধ কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা অবৈধভাবে উপার্জন করেছে পাপিয়া।
র‌্যাব-১’র অধিনায়ক লে. কর্নেল শাফী উল্লাহ বুলবুল বলেন, পাপিয়ার আয়ের অরেকটি উৎস হচ্ছে নারীদের দিয়ে জোরপূর্বক অনৈতিক কাজ করানো। ঢাকার বিভিন্ন বিলাসবহুল হোটেলে অবস্থান করে কম বয়সের মেয়েদের অসামাজিক কাজ করতে বাধ্য করে। যাদের অধিকাংশকেই নরসিংদী থেকে চাকরি দেয়ার কথা এবং বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে নিয়ে আসা হয়। অনৈতিক কাজে বাধ্য না হলে তাদের শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.