চবিতে ছাত্রী উত্ত্যক্তকারীর শিক্ষার্থীর বহিষ্কারের দাবিতে বিক্ষোভ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) এক ছাত্রীকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছনার দায়ে এক মাসের সাজাপ্রাপ্ত যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী প্রবীর ঘোষ জামিন পাওয়ার ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা। এসময় তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের দাবি জানানো হয়।  

বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) সকাল ১০টায় জামিন পেয়ে প্রবীর মাস্টার্সের পরীক্ষায় অংশ নিতে আসলে সমাজবিজ্ঞান অনুষদের তৃতীয় তলায় পরীক্ষা কেন্দ্রের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র আসিফ হোসাইন সাংবাদিকদের বলেন, প্রবীর ঘোষ প্রথম বর্ষ থেকেই মেয়েদের উত্ত্যক্ত করত। আমাদের বিভাগের এক আপুকেও সে তখন থেকেই উত্ত্যক্ত করত। এর জন্য আগেও তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। গত এক মার্চ আমাদের বিভাগের র‍্যাগডে পালনের সময় রাতে কাটাপাহাড় রাস্তায় এক মেয়ের শরীর স্পর্শ করে ও মুখে রঙ লাগায়। অন্য বিভাগ জানি না, এ ঘটনার পর আমাদের বিভাগেরই অনেক মেয়ে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে এসেছে। এখন দুইদিন যেতে না যেতেই তাকে জামিন দেওয়া হল। আমাদের দাবি তার ছাত্রত্ব বাতিল করতে হবে। 

বিভাগের আরেক ছাত্র মাহফুজুল হাসান জানান, প্রক্টর স্যার রবিবার পর্যন্ত সময় চেয়েছেন। আমরাও সেদিন পর্যন্ত অপেক্ষা করব। সেদিন আমরা একটি মানববন্ধনও করব। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া না হলে আমরা আন্দোলন করব। 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এস এম মনিরুল হাসান বলেন, সে যেহেতু আগেই সাজাপ্রাপ্ত, তাকে শাস্তি দিতে কোনো বাঁধা নেই, তার শাস্তি হবে।

প্রসঙ্গত, গত ১ মার্চ রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাটা পাহাড় সড়কে এক মেয়ে শিক্ষার্থীর মুখে রং মেখে দিয়ে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে প্রবীর। পরে ভুক্তভোগীর সহপাঠীরা তাকে ধরে প্রক্টরিয়াল বডির নিকট হস্তান্তর করলে তাৎক্ষণিক ভ্রাম্যমাণ আদালতে পাঠানো হয়। পরে রাত ১০ টার দিকে হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমীন পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়য়।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.