সাবেক চিফ হুইপ শহীদের ওপর হামলা

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নে সাবেক চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ ড. আবদুস শহীদ এমপির ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে। এ হামলায় তার ব্যক্তিগত সহকারীসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন।

রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়ন এ ঘটনা ঘটে।

 

রাতেই এমপির ছোটভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী ইফতেখার আহমেদের প্রধান নির্বাচনি এজেন্ট ইমতিয়াজ আহমেদ বাদী হয়ে ৩৫ জনকে আসামি করে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন।

 

এ ঘটনার পর আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মৌলভীবাজার-৪ আসনের এমপি উপাধ্যক্ষ শহীদ রাত সাড়ে ৯টায় ব্যক্তিগত গাড়ি নোহা বক্সি নিয়ে মুন্সীবাজার যান।

 

সেখানে তার ছোটভাই রহিমপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইফতেখার আহমেদ বদরুলের কার্যালয়ে বসেন।

 

ছোটভাই এ সময় অফিসে না থাকায় তার জন্য অপেক্ষা করছিলেন শহীদ। এ সময় আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত বিদ্রোহী প্রার্থী জুনেল আহমেদ তরফদারের নির্দেশনায় তার সমর্থকরা অতর্কিতে হামলা চালায়।

 

এ সময় এমপির ব্যক্তিগত সহকারী ইমাম হোসেন সোহেলসহ পাঁচজন জখম হয়েছেন। এ ঘটনার পর উভয়পক্ষের মধ্যে কয়েক দফা ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়।

 

পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আবদুস শহীদকে উদ্ধার করে ও আহতদের কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

 

এ ঘটনায় রাতেই প্রধান নির্বাচনি এজেন্ট ইমতিয়াজ আহমেদ বাদী হয়ে ৩৫ জনকে আসামি করে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন।

 

মামলার বাদী ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, বড়ভাই উপাধ্যক্ষ ড. এমএ শহীদ ব্যক্তিগত সফরে রোববার রাতে শমসেরনগরে তার এক ছাত্রের বাসায় গিয়েছিলেন।

 

সেখান থেকে গ্রামের বাড়ি সিদ্ধেশ্বরপুর হয়ে শ্রীমঙ্গল ফেরার পথে আমার সঙ্গে দেখা করতে আসেন। এ সময় পূর্বপরিকল্পিতভাবে ওঁৎ পেতে থাকা আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী জুনেল আহমেদ তরফদারের উপস্থিতিতে তার নির্দেশনায় এমপির প্রাণনাশের উদ্দেশ্যে হামলা চালানো হয়।

 

রহিমপুর ইউনিয়নের আওয়ামী বিদ্রাহী চেয়ারম্যান প্রার্থী ও অভিযুক্ত জুনেল আহমেদ তরফদার বলেন, নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করে এমপি উপাধ্যক্ষ ড. এম শহীদ প্রভাব বিস্তার করতে চেয়েছিলেন।

 

তিনি কোনো হামলার নির্দেশও দেননি ও হামলাও করেননি। বিক্ষুব্ধ লোকজন  এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

 

কমলগঞ্জ থানার পরিদর্শক সোহেল রানা বলেন, মামলায় ৩৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে এ মুহূর্তে কারও না প্রকাশ করা যাবে না। তদন্তক্রমে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

 

 

 

আরও পড়ুন

শিক্ষা  অপরাধ  স্বাস্থ্য  অর্থনীতি  রাজনীতি  আন্তর্জাতিক  খেলাধুলা  লাইফস্টাইল  সারাদেশ

সাবেক সাবেক সাবেক

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.