শিমু হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে মুখ খুললেন জায়েদ খান

অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমু হত্যাকাণ্ডে নিজের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে মুখ খুলেছেন বিদায়ী শিল্পী সমিতি কমিটির সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক জায়েদ খান।

 

তিনি বলেছেন, এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে।

 

সোমবার সকালে কেরানীগঞ্জ আলীপুর ব্রিজের পাশ থেকে বস্তা বন্দী অবস্থায় অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম ওরফে শিমুর লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।

 

অভিনেত্রী শিমুর ছোটবোন ফাতেমা জানান, রোববার সকাল ১০টায় বাসা থেকে বের হয় শিমু, সন্ধ্যা ৭টায় শিমুর এক বন্ধু তাকে ফোনে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানায়।

 

পরে রাত ১১টায় কলাবাগান থানায় জিডি করা হয়। সোমবার সন্ধ্যায় মিটফোর্ড হাসপাতালে লাশ শনাক্ত করে তার পরিবার।

 

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি থেকে ভোটাধিকার হারানো শতাধিক শিল্পীদের মধ্যে হত্যাকাণ্ডের শিকার শিমুও ছিলেন। এ নিয়ে বিদায়ী শিল্পী সমিতির কমিটির সাধারণ সম্পাদকের সাথে কয়েকদফায় বিবাদে জড়ান তিনি।

 

সোমবার শিমুর মরদেহ উদ্ধার করার পর পদ হারানো একাধিক শিল্পী অভিযোগ করেন হত্যাকাণ্ডের পেছনে জায়েদ খানের হাত থাকতে পারে। তবে শিমুর পরিবার বলছে, জায়েদ খানের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই। পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে , এই হত্যাকাণ্ড যাতে ভিন্নভাবে প্রবাহিত না করা হয়।

 

শিমু হত্যাকাণ্ড নিয়ে মঙ্গলবার জায়েদ খান বলেন, হত্যাকাণ্ড নিয়ে বিভিন্ন ধরনের কথা ছড়াচ্ছে। এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। মিথ্যাভাবে আমাকে জড়াচ্ছে, তাদের বিরুদ্ধে আমি আইনি ব্যবস্থা নেব। আসন্ন শিল্পী সমিতির নির্বাচনে আমাকে চাপে ফেলার জন্য এই রাজনীতি করা হচ্ছে।

 

এদিকে বাংলা চলচ্চিত্রের অভিনয়শিল্পী রাইমা ইসলাম শিমু হত্যার ঘটনায় তার স্বামী নোবেল ও নোবেলের বন্ধু ফরহাদকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

 

জানা গেছে, বর্তমান সিনেমার মাধ্যমে ১৯৯৮ সালে ঢালিউডে অভিষেক হয় শিমুর। ১৯৯৮ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত শিমু ২০টির বেশি সিনেমায় অভিনয় করেন।

 

 

 

আরও পড়ুন

শিক্ষা  অপরাধ  স্বাস্থ্য  অর্থনীতি  রাজনীতি  আন্তর্জাতিক  খেলাধুলা  লাইফস্টাইল  সারাদেশ

অভিযোগে অভিযোগে

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.