Fri. Feb 21st, 2020

শার্শা পুলিশের মাদক হজমে জনমনে অসন্তোষ

ইয়ানূর রহমান : শার্শার বাগআঁচড়া পুলিশের মাদক হজমে জনমেন অসন্তোষ দেখা দিয়েছে ৷ ঘটনাটি ঘটেছে শার্শার সামটা এলাকায় ৷
যশোরের শার্শা উপজেলার সামটা গ্রামে ৪শ’ বোতল ফেন্সিডিলসহ রউফ আলী (৪৫) এক মাদক ব‍্যবসায়ীকে আটক করেছে গ্রামবাসী। পরে আটককৃত ফেন্সিডিলসহ তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয় তারা। পুলিশ হেফাজতে যেতে না যেতেই অর্ধেকের বেশি ফেনসিডিল উধাও।
বৃহস্পতিবার (০৬ ফেব্রুয়ারী) রাতে গরু চোর সন্দেহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রামবাসী ফেনসিডিলসহ পুলিশে সোর্পদ করে। তখন সেই ব্যবসায়ীকে বিপুল পরিমাণ ফেন্সিডিলসহ পুলিশের কাছে সোর্পদ করে এলাকাবাসী।
কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায় আসামিকে সেই উদ্ধারকৃত ফেন্সিডিলের অর্ধেকেরও কম জমা দিয়ে বৃহস্পতিবার থানায় মামলা দেওয়া হয়েছে।
মাদকের অর্ধেক উধাও হলো কেমন করে এমনই প্রশ্ন জনমনে অসন্তস দেখা দিয়েছে ।
এলাকাবাসী জানায়, উদ্ধারকৃত ফেনসিডিলের পরিমাণ প্রায় ৪শ’ বোতল।
গরু চোর সন্দেহ রউফ আলী নামক এক অপরিচিত ব্যক্তিকে গ্রামবাসী সন্দেহজনক ভেবে ঘেরাও করে পুলিশকে খবর দেয়। এমন খবর পেয়ে বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সেকেন্ড অফিসার এস আই আব্দুর রহিম হাওলাদার সঙ্গীও ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে উদ্ধারকৃত ফেনসিডিলসহ রউফকে হেফাজতে নেয়।
স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, মাদক মাটিতে খায় জানেন না ?
এ বিষয়ে বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই আব্দুর রহিম হাওলাদারকে উদ্ধারকৃত মাদকের সঠিক তথ্য জানতে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমরাও শুনেছি সেখানে ৪শ’ বোতল ফেনসিডিল ফেলে গেছে। কিন্তু আমরা তো ১৪৯ বোতল উদ্ধার করেছি। আসলে জনগণের মাধ্যমে উদ্ধার করা হয়েছে তো সে জন্য এমন কথা উঠতেছে।
বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) সুকদেব রায় বলেন, উদ্ধারকৃত মাদকসহ আটককৃত ব‍্যক্তির নামে থানায় মামলা হয়েছে। #

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *