Sun. Dec 15th, 2019

ফিলিস্তিনে অবৈধ বসতি দ্রুত বাড়াচ্ছে ইসরায়েল

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে গত ১০ বছরে প্রায় ২০ হাজার অবৈধ ইহুদি বসতি স্থাপন করেছে ইসরায়েল। ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর মেয়াদকালে এসব অবৈধ স্থাপনা তৈরি হয়েছে। অবৈধ বসতি স্থাপনবিরোধী পর্যবেক্ষক সংস্থা পিস নাউ-এর বার্ষিক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এমন তথ্য। বুধবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে মিডল ইস্ট মনিটর।

ইসরায়েলের দখল করা ফিলিস্তিনি ভূমিতে বসতি নির্মাণের কাজ বন্ধ করার দাবি জানিয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ৯ মাস আগে প্রস্তাব পাস হয়। ওই সময় যুক্তরাষ্ট্রের ওবামা প্রশাসন এই প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভেটো না দিয়ে ভোট দান থেকে বিরত থাকে। এর আগে এ ধরনের প্রস্তাবে বরাবর ভেটো দিত যুক্তরাষ্ট্র। এ ঘটনায় ওবামার ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছিল ইসরায়েল।

জাতিসংঘ বরাবরই বসতি স্থাপনের বিরোধী। এগুলোকে অবৈধ মনে করে আন্তর্জাতিক এই সংস্থা। নিকোলে অভিযোগ করেন, ইসরায়েলের প্রশাসন বসতি স্থাপন নিয়ে উসকানিমূলক প্রচারণা চালাচ্ছে। তিনি বলেন, ইসরায়েলের অনেক রাজনীতিবিদ পুরো পশ্চিম তীরকে ইসরায়েলের সঙ্গে সংযুক্ত করে ফেলার দাবি করেছেন। পার্লামেন্ট নেসেটের এক সদস্য সম্প্রতি বলেছেন, এমনটি করা হলে, ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের স্বপ্ন ধ্বংস হয়ে যাবে। জাতিসংঘ দূত বলেন, নতুন করে বসতি স্থাপনের পাশাপাশি ফিলিস্তিনিদের বসতবাড়ি এবং স্কুল ভেঙে ফেলা হচ্ছে। সম্প্রতি ফিলিস্তিনিদের ৩৪৪টি ভবন ধ্বংস করে দিয়েছে ইসরায়েলি বাহিনী, এর মধ্যে এক-তৃতীয়াংশ পূর্ব জেরুজালেমে। এর ফলে কমপক্ষে ৫০০ ফিলিস্তিনি বাস্তুহারা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *