Mon. Dec 9th, 2019

গণতন্ত্রের কর্মী হওয়ায় বহু নেতাকর্মীকে হত্যা করা হয়েছে: ফখরুল

সরকার জনগণের অধিকার কেড়ে নিয়ে দেশকে একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করার পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘যিনি দীর্ঘকাল গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলন সংগ্রাম করেছেন, সেই নেত্রীকে অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে। শুধুমাত্র গণতন্ত্রের কর্মী হওয়ায় বহু নেতাকর্মীকে হত্যা করা হয়েছে।’

বৃহস্পতিবার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যৌথ সভা শেষে বিএনপির মহাসচিব এসব কথা বলেন। যৌথ সভায় বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ২২ মে থেকে ৩১ মে পর্যন্ত ১০ দিনের কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত হয়।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, ২২ মে সকাল ৬টায় নয়াপল্টনে দলীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে এবং দলের পক্ষ থেকে ওই দিন সকাল ১০টায় জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে।

এছাড়া, বিএনপির অঙ্গ সংগঠন ওলামা দলের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল, ড্যাবের উদ্যোগে বিনামূলে চিকিৎসা প্রদান, মহানগর বিএনপির উদ্যোগে দরিদ্রদের মাঝে খাবার ও ইফতার বিতরণ কর্মসূচি পালন করা হবে।

ছাত্রদলের উদ্যাগে জাতীয় প্রেস ক্লাবে আলোকচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া সারাদেশের নেতাকর্মীদের সুবিধা অনুযায়ী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ছিলেন বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাতা। একদলীয় শাসন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে তিনি বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। আমরা তাকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি।’

উল্লেখ্য, ১৯৮১ সালের ৩০ মে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে সেনাবাহিনীর কিছু বিপথগামী সদস্যের হাতে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান নিহত হন।

যৌথ সভায় উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দীন খোকন, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, মুজিবুর রহমান সারোয়ার, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান সালেহ প্রিন্স, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *